সুস্বাস্থ্যের জন্য চাই সঠিক নিয়মিত ও পরিমিত খাবার।। "Maintaining your skin at its optimal health and apearance will greatly contribute to your quality of life". নিরাপদ পুষ্টিকর খাবার সুস্থ জীবনের অঙ্গীকার।।
Post

কিডনি সুস্থ রাখবেন যেভাবে জেনে রাখা জুরুরী।।

কিডনী

কিডনি রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর মধ্যে কিছু কিডনি রোগ আছে, সময়মতো উপযুক্ত চিকিৎসার অভাবে কিডনি ফেইলুর হয়ে যায়। আর কিডনি ফেইলুরের অন্যতম কারণ হলো অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিস রোগ। মেডিসিন বা অন্য চিকিৎসার পাশাপাশি কিডনি ফেইলুরে খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

এ কারণে কিডনি সুস্থ রাখার ব্যাপারে সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। এ জন্য কিছু নিয়ম মেনে চলা জরুরী। যেমন-

১. ওজন কমাতে গিয়ে অনেকে কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার পুরোপুরি বন্ধ করে দেন। এটা ঠিক নয়। খাবারের মোট ক্যালরির ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ কার্বাহাইড্রেট থাকা উচিত। এজন্য ভাত বা রুটি খেতে পারেন। তবে তা অল্প পরিমাণে। সেই সঙ্গে প্রচুর শাকসবজি খান।

২. খাবারে কাঁচা লবণ খাওয়া ঠিক নয়। রান্না করবেন অল্প লবণ দিয়ে।  এছাড়া প্রক্রিয়াজাত খাবার কম খান৷ তাহলে কিডনির রোগের আশঙ্কা প্রায় ২০ শতাংশ কমবে৷

৩. জাঙ্ক ফুড না খাওয়াই ভাল৷ কারণ এতে বেশি প্রোটিন, ফ্যাট, প্রিজারভেটিভ ও লবণ থাকে, যার প্রতিটিই কিডনির জন্য ক্ষতিকারক৷

৪. ওজন বাড়তে দেবেন না৷ কারণ ওজন বাড়লেই কিডনির ক্ষতি হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে৷ 

৫. নিয়মিত পর্যাপ্ত পান পান করুন। পানি কম খেলে কিডনিতে পাথর হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে, বেশি খেলে কিডনির উপর চাপ পড়ে।

৬. নিয়মিত ব্যায়াম করুন। সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ৩০ মিনিট হাঁটুন, সাঁতার কাটুন অথবা সাইকেল চালান। এতে শরীর–মন দুইই ভাল থাকে৷ সেই সঙ্গে যোগব্যায়ামও করতে পারেন।

৭. কিছু ওষুধ আছে যা থেকে কিডনি খারাপ হতে পারে৷এ কারণে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়।                       

৮. নিয়মিত রাত জাগা, কাজের চাপ, বিশ্রামের অভাবে দুশ্চিন্তা বাড়ে। সেই সঙ্গে হৃৎস্পন্দন, রক্তচাপও বাড়ে।তাতে কিডনির উপরও চাপ পড়ে।এ কারণে নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন করুন। 

মোঃ আব্দুর রহমান ফাহাদ।।

জুনিয়র মেডিসিন কনসালটেন্ট।।

12 comments

leave a comment